• ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সরকার গঠন করতে পারেন বা না পারেন- ম্যাজিক দেখিয়েছেন কারারুদ্ধ ইমরান খান , আরও একবার প্রমাণ দিয়েছেন নিজের জনপ্রিয়তা

usbnews
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪
সরকার গঠন করতে পারেন বা না পারেন- ম্যাজিক দেখিয়েছেন কারারুদ্ধ ইমরান খান , আরও একবার প্রমাণ দিয়েছেন নিজের জনপ্রিয়তা
নিউজটি শেয়ার করুনঃ

সরকার গঠন করতে পারেন বা না পারেন- ম্যাজিক দেখিয়েছেন কারারুদ্ধ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি আরও একবার প্রমাণ দিয়েছেন নিজের জনপ্রিয়তা। তাই তো তার দল পাকিস্তান
তেহরিকে ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সব রাজনৈতিক দলকে পেছনে ফেলে শীর্ষ জনপ্রিয়তা প্রদর্শন করেছেন। বৃহস্পতিবার নির্বাচন হয়ে গেলেও শনিবার পর্যন্ত যেসব ফল পাওয়া গেছে তাতে পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জাতীয় পরিষদে ৯৫ আসনে বিজয়ী হয়েছেন। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন)। তারা পেয়েছে ৭৪ আসন। অন্যদিকে ঐতিহ্যবাহী পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) পেয়েছে ৫৪টি আসন। অন্যান্য দল অল্প আসনে বিজয়ী হয়েছে। নির্বাচনে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। পিটিআই অভিযোগ করেছে, ভোটে জালিয়াতি হয়েছে।

তাদের আসন কেড়ে নেয়া হয়েছে। তা নাহলে তারা ১৭০ আসনে বিজয়ী হয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতো। কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় এখন জোট সরকার গঠনের তোড়জোড় চলছে। পিটিআই যেমন সরকার গঠনের জন্য বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করছে, তেমনি পিএমএলএন এবং পিপিপি মিলে জোট গঠনের চেষ্টা করছে। এক্ষেত্রে যেহেতু পিটিআইয়ের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি আসনে বিজয়ী হয়েছেন, সেহেতু সরকার গঠনের জন্য তাদের অগ্রাধিকার থাকার কথা।

এ প্রেক্ষাপটে ইমরান খানের অন্যতম এক সহযোগী বলেছেন, তারা সরকার গঠন করতে চান। তবে নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ না করলে সমর্থকদের তারা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করার আহ্বান জানিয়েছেন। জোট সরকার গঠন নিয়ে পিএমএলএন এবং পিপিপি’র নেতাদের মধ্যে শনিবার বিভিন্ন সময়ে শীর্ষ পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, তারা জোট সরকার গঠনে একমত হয়েছেন। কিন্তু পিপিপি’র অন্যতম নেতা খুরশিদ শাহ জানিয়েছেন নতুন সরকারের প্রধানমন্ত্রী হতে চান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। যদি নওয়াজ শরীফ প্রধানমন্ত্রী হতে চান, তাহলে এই জোটে যোগ দেবে না পিপিপি। অন্যদিকে নির্বাচনের আগে থেকেই প্রধানমন্ত্রী পদের দিকে দৃষ্টি নওয়াজ শরীফের। তিনি লন্ডনে নির্বাসনে থাকার সময় থেকেই তার দল পিএমএলএন এবং এর তখনকার প্রেসিডেন্ট শেহবাজ শরীফ জানিয়েছেন, নতুন সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন নওয়াজ শরীফ। ফলে গতকাল এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দল দুটির মধ্যে এই প্রধানমন্ত্রী পদ নিয়ে সংকট আটকে ছিল।

দক্ষিণ এশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী এই দেশটিতে বৃহস্পতিবার নির্বাচন হয়। যখন দেশ অর্থনৈতিক সংকট এবং উগ্রপন্থিদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে মারাত্মক রাজনৈতিক মেরূকরণ করা এক পরিবেশে, তখন এই নির্বাচন হলো। শুক্রবার পূর্ণাঙ্গ ফল ঘোষণা না হলেও নিজেদেরকে বিজয়ী ঘোষণা করেন ইমরান খান ও নওয়াজ শরীফ। পিটিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গওহর খান। তিনি একই সঙ্গে ইমরান খানের আইনজীবীও। তার দলের প্রতি পাকিস্তানের জনগণ যে ম্যান্ডেট দিয়েছে তার প্রতি সম্মান দেখাতে পাকিস্তানের সব প্রতিষ্ঠানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন- যদি শনিবার রাতের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ ফল প্রকাশ করা না হয়, তাহলে রোববার দেশ জুড়ে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের অফিসের বাইরে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভ করবে তার দল। এরই মধ্যে নির্বাচন সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য শনিবার দেশবাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল অসিম মুনির।

তিনি সবাইকে এক হয়ে দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।
ওদিকে নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তদন্ত করার আহ্বান জানিয়ে নির্বাচনী প্রক্রিয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও অস্ট্রেলিয়া। নির্বাচনের সুষ্ঠুতা এবং সবার অংশগ্রহণ হয়নি বলে মারাত্মক উদ্বেগ জানিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী  ডেভিড ক্যামেরন। শনিবার এর পাল্টা জবাব দিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলেছে, পাকিস্তানে সফলভাবে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে এ নিয়ে যে অবিশ্বাস্য কথা তারা বলেছে পাকিস্তান তা উপেক্ষা করে। নাইজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট গুডলাক জোনাথনের নেতৃত্বে কমনওয়েলথের একটি পর্যবেক্ষক দল পাকিস্তানের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছে। তিনি নির্বাচনের আগে বলেছেন, আমাদের আশা হলো একটি কার্যকর নির্বাচন হবে। তাতে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটবে।