• ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

কাতারের আমিরের সাথে গাজায় যুদ্ধবিরতি নিশ্চিত করার বিষয়ে আলোচনার জন্য দোহায় পৌঁছেছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট

usbnews
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২৪
কাতারের আমিরের সাথে গাজায় যুদ্ধবিরতি নিশ্চিত করার বিষয়ে আলোচনার জন্য দোহায় পৌঁছেছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট
নিউজটি শেয়ার করুনঃ

ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস কাতারের আমিরের সাথে গাজায় যুদ্ধবিরতি নিশ্চিত করার বিষয়ে আলোচনার জন্য দোহায় পৌঁছেছেন। কাতার ইসরাইল ও হামাসের মধ্যে মধ্যস্থতা প্রচেষ্টার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে।

ফিলিস্তিনের সরকারী বার্তা সংস্থা ওয়াফা বলেছে যে, আব্বাস সোমবার আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সাথে দেখা করবেন, তবে তিনি হামাসের নেতাদের সাথেও দেখা করবেন কিনা তা বলেননি। দীর্ঘদিন ধরে আব্বাস এবং তার পশ্চিম তীর ভিত্তিক ফাতাহর সাথে মতবিরোধ রয়েছে হামাসের।

কাতারে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত মুনির ঘানাম রোববার ভয়েস অফ প্যালেস্টাইন রেডিওকে বলেছেন যে, আব্বাস এবং আমির ইসরাইলের সাথে গাজা যুদ্ধবিরতি নিশ্চিত করার প্রচেষ্টা এবং এ অঞ্চলের ২৩ লাখ মানুষের জন্য সাহায্য বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন।

‘কাতার একটি যুদ্ধবিরতিতে পৌঁছাতে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা এবং মধ্যস্থতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সুতরাং, আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে এ আগ্রাসনের অবসান ঘটাতে কাতারের সাথে, মিশরের সাথেও সমন্বয় বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ,’ ঘানাম বলেছেন।

কাতার হামাসের প্রধান, ইসমাইল হানিয়াহ, সেইসাথে গ্রুপের আরেক সিনিয়র নেতা, খালেদ মেশালকে আশ্রয় দিয়েছে, যিনি হামাসের রাজনৈতিক অফিসে প্রবাসী বিষয়গুলি পরিচালনা করেন।

দক্ষিণ গাজার শহরে ১৪ লাখ ফিলিস্তিনি বেসামরিক নাগরিকদের সম্ভাব্য পরিণতি সম্পর্কে আন্তর্জাতিক সতর্কতা বৃদ্ধি সত্ত্বেও, ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু রাফাতে স্থল আক্রমণের পরিকল্পনা অগ্রসর করার প্রতিশ্রুতি দেয়ার পর এ সফরের ঘোষণা আসে।

ইসরাইলের প্রধান আন্তর্জাতিক মিত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সতর্ক করেছে যে, রাফাহ আক্রমণ একটি ‘বিপর্যয়’ হতে পারে এবং জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস সতর্ক করেছেন যে, শহরের ফিলিস্তিনি বেসামরিকদের ‘কোথাও যাওয়ার নেই’।