• ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

আগামী মার্চ থেকে বিমানের ঢাকা-রোম ফ্লাইট চালুর জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চালাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

usbnews
প্রকাশিত ডিসেম্বর ২২, ২০২৩
আগামী মার্চ থেকে বিমানের ঢাকা-রোম ফ্লাইট চালুর জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চালাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স
নিউজটি শেয়ার করুনঃ

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে আগামী ২৬ মার্চ থেকে দীর্ঘ ১৫ বছর পর ঢাকা-রোম-ঢাকা ফ্লাইট পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

বিমানের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও শফিউল আজিম আজ রাজধানীতে এভিয়েশন সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ইন্টারেক্টিভ অনুষ্ঠানে বলেন, বিমানের চলমান আন্তর্জাতিক রুট সম্প্রসারণ প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে আমরা আগামী মার্চ থেকে রোমের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।

বিমান প্রধানের কথার সাথে যোগ করে জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থার বিপণন ও বিক্রয় পরিচালক মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বলেন, তারা বর্তমানে ঢাকা-রোম সরাসরি অথবা কুয়েত বা সংযুক্ত আরব আমিরাত হয়ে একটি ফ্লাইট পরিচালনার জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চালাচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ২০০৯ সালের পর ঢাকা-রোম ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছিলাম। এখন এটি আবার চালু করা হবে। এজন্য জিএসএ (জেনারেল সেলস এজেন্ট) নিয়োগ ও গ্রাউন্ড-হ্যান্ডলিংও চূড়ান্ত করা হয়েছে। সালাহউদ্দিন বলেন, সরাসরি ফ্লাইটটি রোম পৌঁছতে ৯-১০ ঘণ্টা সময় লাগবে।

এভিয়েশন অ্যান্ড ট্যুরিজম জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ (এটিজেএফবি) রাজধানীর বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ট্রেনিং সেন্টার (বিএটিসি)তে ‘এটিজেএফবি ডায়ালগ’ শীর্ষক এই ফ্ল্যাগশিপ ইভেন্টের আয়োজন করে।

 

ইউরোপীয় এয়ারবাস ও মার্কিন বোয়িংয়ের দুটি বৈশ্বিক বিমান জায়ান্টের যুগপৎ প্রস্তাবের বিষয়ে আপডেট সম্পর্কে মন্তব্য জানতে চাওয়া হলে আজিম বলেন, বিমান কেবল সেই কোম্পানির কাছ থেকেই বিমান কিনবে, যা রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ক্যারিয়ারের টেকসই মুনাফা নিশ্চিত করবে। বোয়িংয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসের সাথে তার সাম্প্রতিক বৈঠকের কথা উল্লেখ করে বিমানের এমডি বলেন, আমেরিকান প্লেন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বিমানকে দুটি ওয়াইড বডি বিমান বিক্রির প্রস্তাব দিয়েছে। বিমান এয়ারবাসের সাথে দুটি মালবাহী বিমান ও ১০টি ওয়াইড বডি এ৩৫০ এয়ারক্রাফ্ট কেনার জন্য আলোচনায় চালাচ্ছে এমন সময় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বোয়িং এ অফার দেয়।

আরেক প্রশ্নের জবাবে আজিম স্পষ্ট করে বলেন, বিমান কোনো বিশেষ দেশের থেকে বিমান কেনার জন্য কোনো রাজনৈতিক চাপের মধ্যে নেই। ‘আমরা যাচাই-বাছাই করছি। যেটা আমাদের জন্য ভালো হবে সেটাই আমরা কিনব।’ সিইও বলেন, বিমান সিলেট ও চট্টগ্রামে হ্যাঙ্গার, ইঞ্জিনিয়ারিং ও ক্যাটারিং সহায়তায় আঞ্চলিক ঘাঁটি স্থাপনের পরিকল্পনা করছে। বর্তমানে বিমানের দূরপাল্লার ওয়াইড বডি বিমানগুলো ঢাকা থেকে সিলেট ও চট্টগ্রামে নগরগুলোকে দূরবর্তী আন্তর্জাতিক গন্তব্যের সঙ্গে যুক্ত করতে স্বল্পদূরত্বে ফ্লাইট পরিচালনা করে ইঞ্জিন সাইকেল নষ্ট করছে বলে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।